আশুলিয়ায় আ.লীগ নেতার বাড়িতে হামলা, থানায় অভিযোগ

প্রকাশিত: ৮:৩৫ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০২২
150 Views

আশুলিয়ায় আ.লীগ নেতার বাড়িতে হামলা, থানায় অভিযোগ

আশুলিয়া প্রতিনিধি:

সাভারের আশুলিয়ায় এক আওয়ামীলীগ নেতার ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে তার বাড়িতে হামলা চালিয়েছে মখলেসুর ও জয়নাল সহ তার দল বল, এসময় তারা আঃলীগ নেতার বাসায় ঢুকে এলোপাথাড়ি মারধরসহ বাড়িতে ভাংচুর করে এবং তার ঘর থেকে নগদ ৩ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ।

শুক্রবার(১০ জুন) দুপুর ২ টার দিকে আশুলিয়ার জামগড়ার রূপায়ন মাঠ সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী আওয়ামীলীগ নেতার নাম রনি আহম্মেদ। তিনি আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়ন ১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক।

অভিযুক্তরা হলেন, জামগড়া গফুর মন্ডল স্কুল এলাকার দারোগ আলীর ছেলে ইয়ারপুর ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সাবেক নেতা মোঃ জয়নাল আবেদিন (৩৮), তার ভাই রুবেল মিয়া(২৭), ফালু মিয়ার ছেলে মোখলেস সহ অজ্ঞাত প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন।

জানা যায়, কিছুদিন আগে স্থানিয় আওয়ামীগ নেতা রনি আহমেদ তার ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে লিখেছিলেন, “ভাই আপনারা কি মীর জাফর কে দেখেছেন” এই স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে হামলাকারীরা বাড়িতে এসে আগে মোবাইল ফোনে ওই স্ট্যাটাস দেখায়, তারপর মারধর শুরু করে। এসময় আঘাতে রনি আহাম্মেদ ঘাটের ওপর পড়ে গেলে বিছানার তোষক উলটে যায়। আর সেখানে থাকা টাকার বান্ডেল বের হয়ে গেলে সেই টাকা নিয়ে হামলাকারীরা চলে যায়। তার হাতে ও কোমড়ে মারের চোটে জখমের চিহ্ন দেখা গেছে। রনি আহমেদের বাড়ির উঠোনে লোকজনের ভিড় সম্বলিত একটি সিসিটিভি ফুটেজ এই প্রতিবেদকের হাতে এসেছে। যেখানে দেখা যায় জয়নাল সহ বেশ কিছু মানুষের হট্টোগোল।

রনি আহমেদ বলেন, জয়নালের ভাই রুবেল জুয়ার আসর বসাতো এবং এলাকায় অসামাজিক অনৈতিক কাজ করাতো। আমি এগুলোর বিরুদ্ধে ছিলাম। আমার বাসায় জয়নাল,মোখলেস রুবেলসহ একদল সন্ত্রাসী এসে আমাকে জিজ্ঞেস করে, এই স্ট্যাটাস কেন দিয়েছি। আমি বলি আমি তো কারও নাম উল্লেখ করে স্ট্যাটাস দেইনি। এই কথার পরেই আমাকে মারধর শুরু করে। আমার বিছানা থেকে টাকা নিয়েছে জয়নালের ভাই রুবেল। আমার বাসায় ভাড়াটিয়ারা যদি না থাকত তাহলে হয়ত আরও ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটে যেত। আমি আইনী পদক্ষেপ নিব। আমাকে এলাকা ছাড়তে বলছে তারা। আমাকে ব্যবসা বাণিজ্য করতে দিবেনা বলেও হুমকি দিয়েছে।

ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া তাসলিমা বলেন,আমি দুপুরে লান্সের জন্য বাসায় আসি। এসময় দেখি বাড়িতে অনেক লোকজন, তাদের হাতে লাঠিসোটা ছিল। এসময় ঘরে ঢুকে আমার বাড়িওলাকে মারধর করে, আমি ঠেকাতে গেলে আমার শরীরেও আঘাত লাগে।

এব্যাপারে অভিযুক্ত জয়নাল মিয়া ও মখলেস মিয়া বলেন, আজ আমরা রনির বাড়ির সামনে গেলে আমাদের মধ্যে তর্ক বিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে আমাদের মধ্যে হাতাহাতি হয়। আমরা তার বাড়িতে কোন ভাংচুর করিনি। কোন টাকা পয়সাও লুট করিনি। রনি আমার ফুপাতো বোন জামাই। তাও সে আমাদের উদ্দেশ্যঙ করে ফেসবুকে উলটাপালটা স্ট্যাটাস দেয়।

হামলার অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে, আশুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) জি এম আসলামুজ্জামান বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।