ক্রান্তিলগ্নেও এই সরকারের ফ্যাসিজম, স্বেচ্ছাচারিতা বিন্দু পরিমাণ কমেনি

প্রকাশিত: ৮:১৪ অপরাহ্ণ, মে ১১, ২০২০
0Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, তারা অনেক নিরাপত্তার মধ্যে আছেন। সুতরাং তাদের জনগণ নিয়ে, মানুষ নিয়ে এতো ভাবনার তো দরকার নেই। এই কারণেই আজকে যারা কথা বলছেন, যারা তাদের সমালোচনা করছেন তারা এই সরকারের রোষানলের শিকার হচ্ছেন।

তিনি বলেন, এই ক্রান্তিলগ্নেও এই সরকারের ফ্যাসিজম, স্বেচ্ছাচারিতা বিন্দু পরিমাণ কমেনি। আজকে সাংবাদিক সত্য কথা বলার জন্য পিঠমোড়া করে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাচ্ছে। অথচ বেশ কয়েকজন সাংবাদিক করোনায় মারা গেছেন। প্রায় ৮৫ জন সাংবাদিক ইতিম্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই যে বিষয়গুলো এগুলো লেখা যাবে না। সামাজিক মাধ্যমে এগুলো বলা যাবে না, আর বললে পরিণতি হবে কাজলের মতো। পরিণতি হবে আরো অনেকের মতো।

রিজভী বলেন, আজকে যদি সত্যিকারের নির্বাচিত সরকার হতো। তাহলে জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে হতো। আর জবাবদিহি করতে গেলে জনগণের জন্য কী করার দরকার, তারা এই কাজগুলো করতেন। রাতের অন্ধকারে তাদের ভোট হয়ে যায়। তাদের ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, মেম্বারদের জন্যও কোনো ভোট লাগে না। ভোটের দিন ভোট কেন্দ্রে চর্তুষ্পদ প্রাণী ঘুরাফেরা করে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, সুতরাং তাদের কেন জনগণের প্রতি এতো মহব্বত থাববে। কারা বাঁচলো, কে মরলো, কারা অসুস্থ হলো বা কে কি অবস্থায় থাকলো এটাতে তো সরকারের কিছু যায় আসে না। আর তাদের কিছু যায় আসে না বলেই মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। লাশের সারি বৃদ্ধি হচ্ছে। হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। ভয়ঙ্কর অবস্থা বিরাজ করছে।

রিজভী বলেন, এই রকম একটা ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে, একটা ভয়াল পরিস্থিতির মধ্যে মৃত্যু ও আক্রান্তের মধ্য দিয়ে মানুষের জীবন যাপন করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, সাংবাদিক খোকন ছেলেটি আমাদের অত্যন্ত প্রিয়। সেই ছেলেটি আজকে হারিয়ে গেল আমাদের কাছ থেকে। একজন দক্ষ্য প্রসিদ্ধ সাংবাদিক ছিল সে। কিন্তু চিকিৎসার অভাবে সে মারা গেল। তার পরিবার তার টেস্ট করাতে পারেনি। এটি পজেটিভ না নেগিটিভ খোকন জানতে পারেনি। এই যদি পরিস্থিতি হয়; তাহলে সরকারের সমালোচনা কেন করবে না।

সোমবার গাজীপুর মহানগর বিএনপির টঙ্গী পূর্ব থানা শাখার টঙ্গী বাজার এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করেন রহুল কবির রিজভী।