ঈশ্বরগঞ্জে সরকারি সুবিধা পাইয়ে দেয়ার কথা বলে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

প্রকাশিত: ৩:২২ অপরাহ্ণ, মে ৩১, ২০২০
0Shares

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের রাজিপুর ইউনিয়নের এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে সুবিধা বঞ্চিত লোকজনকে সরকারি সুযোগ-সুবিধা প্রদানের আশ্বাস দিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
ওই ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য রইছ উদ্দিনের বিরুদ্ধে রামগোবিন্দপুর, রাধাবল্লভপুর ও হরিপুর গ্রামের ভোক্তভোগীরা এ অভিযোগ তুলে।

হরিপুর গ্রামের আব্দুল জলিলের স্ত্রী আাছিয়া (৫৫) জানান, তার ¯স্বামী বয়স্ক ভাতা কার্ডের জন্য ৩হাজার১শ টাকা,প্রতিবন্ধী নাতনি খাদিজার প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড করার জন্য ৩হাজার ৫শ টাকা এবং সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে ২হাজার টাকা নিলেও তারা পায়নি কোন সরকারি সুবিধা। এ ছাড়াও ৬০০ টাকা দিয়ে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির একটি কার্ড পেলেও দু’ বার এ কার্ড দিয়ে চাল তোলার পর সেই কার্ডও নিয়ে নেন ঐ ইউপি সদস্য।

ইতোমধ্যে করোনা কালিন প্রধানমন্ত্রীর ২হাজার ৫শ টাকা সহায়তা পাবার ব্যবস্থা করে দেয়ার কথা বলে মেম্বার আরও ৩০০ টাকা নেন। এ সময় আছিয়া আরও বলেন, সুদে টাকা এনে মেম্বারকে দিয়েছি। সুদের টাকা পরিশোধ করছে তাঁর মেয়েরা পোশাক কারখানায় চাকুরি করে।

এ ছাড়াও রাধাবল্লভপুর া গ্রামের বেগম (৫০) এর কাছ থেকে বয়স্ক ভাতা কার্ড করে দেওয়ার জন্য ৫হাজার, সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে ১০ হাজার টাকা, ও নাতিকে আইএসপিপির (যতœ প্রকল্প) সুবিধাভোগী কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে ৫হাজার টাকা নেন।

রামগোবিন্দপুর গ্রামের লিয়াকত আলীর স্ত্রী শেফালি বেগম বলেন, তার অসুস্থ ভাইয়ের জন্য একটি সরকারি ঘরের ব্যবস্থা করার কথা বলে ৪০ হাজার টাকা নেন। কিন্তু ঘরের ব্যবস্থা করে দিতে না পারায় চাপের মুখে ২০ হাজার টাকা ফেরত দিলেও বাকি টাকা এখনও পায়নি।

রামগোবিন্দপুর গ্রামের চালকল শ্রমিক ওমর ফারুক (২২) অভিযোগ করে বলেন, সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে ওই মেম্বার তাঁর কাছ থেকে ৬ হাজার টাকা নেয়। এ পর্যন্ত সে ঘরও পায়নি টাকা ফেরত চাইলে নানা তাল বাহানা করে।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য রইছ উদ্দিন বলেন, তার বিরুদ্ধে আনা এসব অভিযোগ প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্র ।##