বাউফলে তাপস হত্যার প্রধান ঘাতক সাইমুনের ব্যবহত চাকু উদ্ধার

প্রকাশিত: ৬:২৯ অপরাহ্ণ, জুন ১, ২০২০
0Shares

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:
পটুয়াখালীর বাউফলে তোরণ নির্মাণকে কেন্দ্র করে যুবলীগ নেতা তাপস হত্যার প্রধান ঘাতক সাইমুনের ব্যবহত চাকু উদ্ধার করা হয়েছে।
রবিার গভীর রাতে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ বিল্লাল হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল সাইমুনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বাউফল পৌর শহরের ৫নং ওয়ার্ডের সাহাপাড়া এলাকায় একটি ডোবা থেকে ব্যবহত চাকুটি উদ্ধার করা হয়।
সাইমুন প্যাদা তাপস হত্যা মামলার ৩নং আসামী। তার বাবার নাম ঝন্টু প্যাদা। এর আগে হত্যার সাথে জড়িত সোহাগ হোসেন, সুব্রত দাস কার্তিক ও মনির হোসন নামের তিন জনকে গ্রেপ্তার করে থানা পুলিশ।
¬¬¬
উল্লেখ্য,গত রবিবার (২৪মে) দুপুরে থানা সংলগ্ন ডাকবাংলোর সামনে তোরণ নির্মাণকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপে তাপস দাস সহ প্রায় ১৫জন আহত হয়। বাউফল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আশংকাজনক অবস্থায় তাপসকে বরিশাল শেরেই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। রাত সাড়ে আটটার দিকে তাপস দাস মৃত্যুবরণ করে। এঘটনায় সোমবার (২৫মে) নিহতের বড় ভাই পাঙ্কজ দাস একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। মামলায় পৌর মেয়র জুয়েলসহ ৩৫জনের নাম উল্লেখ করে আসামী করা হয়।

পটুয়াখালী জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ বিল্লাল হোসেন জানান, প্রাথমিক চিকৎসাবাদে সাইমুন উদ্ধারকৃত ওই চাকু দিয়ে নিহত যুবলীগ কর্মী তাপসকে আঘাত করার কথা স্বীকার করেছেন। ঘটনার দিন ধারণকৃত একটি ভিডিওতে সাইমুনকে চাকু হাতে যুবলীগ কর্মী তাপসকে স্টেপ করতে দেখা যায়। এ মামলার অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের জন্য তারা কাজ করে যাচ্ছেন।