মোংলায় অসহায় দুস্থ জেলেদের মাঝে নৌকা ও জাল বিতরন করেন কোস্টগার্ড বাহিনী।

প্রকাশিত: ৯:৪৬ অপরাহ্ণ, জুন ৭, ২০২০
0Shares
মোঃসোলায়মান শেখ ,মোংলা বাগেরহাট:
দেশের উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের সার্বিক নিরাপত্তা, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও শিক্ষা বিস্তারে সবসময়ই অবদান রেখে চলছে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনী। দেশের যে কোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় সবার আগে তারাই দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করছে। সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে লন্ডভন্ড উপকূলীয় তিন জেলা খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরা এলাকার মানুষের দূর্ভোগের সীমা ছিলনা। একদিকে নদী ভাঙন আর অন্যদিকে বেড়িবাঁধ ভেঙে যাওয়ায় উপকূলীয় এ তিন জেলায় দূর্ভোগে   পড়া মানুষের আকাশে নেমে আসে কালো মেঘ। ঘূর্ণিঝড়ের বাতাসের তীব্র গতি আর পানির স্রোতে হারিয়ে যায় তাদের আশ্রয়।
পানিতে ডুবে যায় তাদের ঘরবাড়ি, সহায় সম্বলহীন হয়ে পড়ে বাগেরহাটের মোংলা, খুলনার কয়রা, সাতক্ষীরার শ্যামনগর, আশাশুনি এলাকার মানুষ। এক রাতের ঘূর্নিঝড়ে তছনছ হয়ে যায় তাদের স্বপ্ন। ভিটেমাটি হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে গলা সমান পানিতে শুরু হয় তাদের বেঁচে থাকার যুদ্ধ।
আর এই দূর্দিনে সবার আগে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনীর সদস্যরা । ঘূর্নিঝড়ের পরের দিন ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাসমূহের এক হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তার কার্যক্রম শুরু করে তারা। ক্ষুধার্ত মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয় খাদ্য সামগ্রী।
আম্পানের আঘাতে লন্ডভন্ড এলাকাগুলোতে কোস্টগার্ড বাহিনীর কার্যক্রম জোরদার করা হয়। যাদের ঘর ভেঙে গেছে তাদের নতুন করে টিন কিনে দেওয়া হয়েছে কোস্টগার্ডের পক্ষ থেকে। ঘর মেরামতের কাজেও কোস্টগার্ড সদস্যরা অংশগ্রহন করে। অন্যান্য বাহিনীর সাথে সমন্বয় রেখে এখনো পর্যন্ত ওই এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি উন্নয়নে কাজ করে চলছে কোস্টগার্ড। স্থানীয় জনগনও কোস্টগার্ডের সাথে কাজ করছে। যাতে করে এমন দূর্যোগ আগামীতে আসলেও সেটা মোকাবেলার সক্ষমতা থাকে।
সেন্টমার্টিন থেকে সুন্দরবন উপকূলীয় এলাকার মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতেও কোস্টগার্ড বাহিনীর ভূমিকা অপরিসীম।
এরই ধারাবাহিকতায় রবিবার (৭ জুন) সকাল ১১ টায় বিসিজি বেইজ মোংলায় ১০ টি অসহায় দুস্থ পরিবারের মাঝে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনীর পক্ষ নৌকা ও জাল বিতরণ করা হয়। প্রথম ধাপে মোংলার ৬ টি, কয়রার ৩ টি ও কৈখালীর ১ টি পরিবারকে নৌকা ও জাল বিতরণ করা হয়।  কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন হাবিবুল আলম, এনইউপি, পিসিজিএম, পিএসসি, বিএন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে নৌকা ও জাল বিতরণ করেন। এসময় আরো উপস্থিত স্টাফ অফিসার (গোয়েন্দা) মাহমুদ সাব্বিরসহ কোস্টগার্ড বাহিনীর অন্যান্য কর্মকর্তা ও নাবিকবৃন্দ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।