জনদুর্ভোগ কমাতে স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তা সংস্কারে মহিষের গাড়ী

প্রকাশিত: ১০:৫০ অপরাহ্ণ, জুন ২৭, ২০২০
0Shares

মো. মোশারফ হোসাইন, শেরপুর প্রতিনিধি:

শেরপুর ও জামালপুর জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা জামালপুরের তুলশীরচর ইউনিয়নের ডিগ্রীরচর এলাকার জনগণের দুর্ভোগ কমাতে এলাকাবাসীর স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তা মেরামত কাজ শুরু করা হয়েছে। ২৬ জুন শুক্রবার সকাল থেকে এ কাজ শুরু করা হয়। এ এলাকার  যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভাবে ভেঙ্গে যাওয়ায় রাস্তা মেরামত কাজে বাধ্যতামূলক মহিষের গাড়ী ব্যবহার করতে হচ্ছে। নকলা উপজেলার বানেশ্বরদী ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সহকারী মৌলভী ও ডিগ্রীরচর এলাকার বাসিন্দা মাওলানা মো. রেজাউল করিমের উদ্যোগে এলাকাবসীদের স্বেচ্ছাশ্রমে এ কাজ শুরু করা হয়।

জানা গেছে, জামালপুরের লক্ষীরচর ইউনিয়নের বারোমারী থেকে তুলশীরচর ইউনিয়নের ডিগ্রীরচর এলাকার মধ্যদিয়ে গিয়ে শেরপুর  জেলার নকলা উপজেলার নারায়নখোলা এলাকায় গিয়ে শেষ হয়েছে। এ রাস্তাদিয়ে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা-উপজেলা শহরে যাতায়াত করেন সেখানকার শতশত পরিবারের জনগন। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তার বেহাল অবস্থার কথা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান হোসেনের পরামর্শে সালাল উদ্দিনের মাধ্যমে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলামসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানালে তাঁরা সাফ জানিয়েদেন এই মুহুর্তে রাস্তা সংস্কারের জন্য কোন প্রকার বরাদ্দ নেই। তাই ডিগ্রীরচর এলাকার হাজারো ভূক্তভোগী নিজেরাই স্বেচ্ছা শ্রমে রাস্তাটি মেরামতের উদ্যোগ নেন। অবশেষে ২৬ জুন শুক্রবার থেকে কাজ শুরু হয়। যদিও ইউপি চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম নিজস্ব তহবিল থেকে ৫ হাজার টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতিদেন। তবে আর্থিক সহযোগিতার বড় একটা অংশ এসছে এলাকার সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবী ও যুবকদের কাছ থেকে। তাছাড়া এলাকার প্রায় সকলেই সামর্থ অনুযায়ী সহায়তা করেছেন।

রাস্তা সংস্কারের কাজটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে গঠন করা হয়েছে একটি ৫ সদস্য বিশিষ্ট অর্থ ব্যবস্থাপনা কমিটি, একটি উপদেষ্টা কমিটি ও একটি কাজ বাস্তবায়ন কমিটি। তাছাড়া গঠন করা হয়েছে বিশাল বড় একটি স্বেচ্ছাসেবক কমিটি। অর্থ ব্যবস্থাপনা কমিটি রাস্তা মেরামত কাজে উপদেষ্টা কমিটির পরামর্শে ও নির্দেশনায় বিভিন্ন ব্যক্তি বা স্থান থেকে অর্থ সংগ্রহ ও ব্যয় করছেন। আর কাজ বাস্তবায়ন কমিটি রাস্তা মেরামতের স্থান নির্ধারণ ও কাজের মান যাচাই এবং স্বেচ্ছাসেবক কমিটি স্বেচ্ছায় রাস্তা মেরামতে নিরলস কাজ করছেন।

অর্থ ব্যবস্থাপনা কমিটির প্রধান হিসেবে হেলাল উদ্দিন কাঙ্গাল, প্রধান সহকারী মো. রেজাউল করিম ও সদস্য হিসেবে আছেন সাব্বির হোসেন, তৌফিকুর রহমান ও মো. হিরা মিয়া। উপদেষ্টা কমিটিতে আছেন- ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. তারা মিয়া, মাওলানা ইসহাক আলী, মো. আব্দুল কদ্দুছ, আবুল হোসেন, জাডু মিয়া, হেলাল উদ্দিন কাঙ্গাল, আব্দুল হক, মো. লোকমান হোসেন, হানি মিয়া, শফিকুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম, কেনা মেম্বার, আলহাজ্ব মিন্টু মিয়া, আলহাজ্ব মকবুল হোসেন, আব্দুল করিম, আব্দুল মতিন, কবির হোসেন ভূট্টো, আজিজুল ইসলাম, সালাউদ্দিনসহ আরও অনেকে। আর যারা স্বেচ্ছা শ্রম দিচ্ছেন তারা হলেন- মো. হিরা মিয়া, কব্দুল হোসেন, মো. রাকিব মিয়া, তৌফিকুর রহমান, মোশারফ হোসেন, আমিনুল ইসলাম, মো. হৃদয় মিয়া, আবু সাঈদ, আল আমীন, জাকির হোসেন, লিমন মিয়া, সোহেল মিয়া, সাদ্দাম হোসেন, বাবু মিয়াসহ এলাকার অনেক তরুণ।

উদ্যোক্তা মাওলানা মো. রেজাউল করিম জানান, জনদূর্ভোগ কমাতে তথা জনস্বার্থে এ রাস্তা সংস্কারে দূর থেকে যে বা যারা আর্থিক সহায়তা করতে আগ্রহী, তাদের সুবিধার্থে একটি মোবাইল বিকাশ নম্বরে (০১৯২০-৬০৮৯৩৬) আর্থিক সহায়তা পাঠাতে অনুরোধ করা হয়েছে। যেকেউ চাইলে এই নম্বরে আর্থিক সহায়তা করতে পারবেন বলে তিনি জানান।