পটুয়াখালীতে র্নিমাণ হচ্ছে দৃস্টি নন্দন ১২ সেতু

প্রকাশিত: ৫:০৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১, ২০২০
0Shares

এম.নাজিম উদ্দিন পটুয়াখালী প্রতিনিধি:

পটুয়াখালী জেলা শহরের আশপাশের ইউনিয়ন গুলোর সড়ক সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা আরো উন্নত, আধুনিক ও সহজতর করার পাশপাশি এসব সড়ক পথে বিদ্যমান খাল পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে আনতে এবং গ্রামীন জনপদে পাশ্চত্যে স্থাপত্য শৈলীর ছোঁয়া দিতে র্নিমান করা হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন সেতু।

গুরুত্ব বিবেচনায় অনেকটা হাতিরঝিলের সেতুর মত দৃষ্টিনন্দন ডিজাইনে করা মোট ১২টি সেতু নির্মানের জন্য টেন্ডার আহবান করে যাবতীয় কার্য সম্পাদন করেছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি)। এরফলে বানিজ্যিক ও অর্থনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ন এ জেলার উন্নয়ন কর্মকান্ডর আরো বেশি তরন্বিত হবে। ব্যস্ততম হয়ে পড়বে গ্রামীন জনপদ থেকে জেলা শহর। থাইল্যান্ড কিংবা সিঙ্গাপুরে আদলে একটি উন্নত শহরে পরিনত হবে পটুয়াখালী এমন ধারনা এলজিইডির।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ সূত্র জানায়, সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নকে জেলা সদরের সাথে সরাসরি সংযুক্ত করার পাশপাশি জেলার ঐতিহ্যবাহী বহালগাছিয়া খালকে তার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সদর উপজেলার পেছনের বাঁধটি অপসারন করে সেখানে ৮১ মিটার দীর্ঘ একটি দৃষ্টিনন্দন ব্রীজ নির্মান করা হবে। একইভাবে বহালগাছিয়া খালের উপর নির্মিত গরুর বাঁধ অপসারন করে সেখানেও ৮১ মিটার দীর্ঘ একটি ব্রীজ নির্মান করা হচ্ছে। এছাড়া মাদারবুনিয়া ইউনিয়নের সাথে পটুয়াখালী পৌর শহরকে সংযুক্ত করতে কুরিরখাল এলাকায় একটি ৪৫ মিটারের ব্রীজ নির্মিত হবে। এর ফলে জেলা শহরের সাথে ছোটবিঘাই, বড়বিঘাই, মরিচবুনিয়া এবং মাদারবুনিয়া ইউনিয়নের নতুন একটি সংযোগ স্থাপিত হবে। একইভাবে পটুয়াখালী পৌরসভার সাথে কালিকাপুর ইউনিয়নের নতুন সংযোগ স্থাপন এবং ফুলতলা খালটি প্রবাহমান করতে বাঁধ অপসারন করে সেখানে ৪৫ মিটারের একটি ব্রীজ নির্মান করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

পটুয়াখালী স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুস ছত্তার জানান, এ সকল ব্রীজ নির্মিত হলে এই অঞ্চলের মানুষের সড়ক যোগাে সহজ হবে, স্বাভাবিক প্রবাহ ফিরে পাবে, খালের দখল হওয়া জমি পুনরুদ্বার করে কৃষি কাজে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা যাবে বলেও জানান নির্বাহী প্রকৌশলী।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের আইবিআরপি প্রকল্প পরিচালক আব্দুল হাই জানান, প্রধানমন্ত্রীর শতবর্ষ পরিকল্পনায় গ্রামেও শহরের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। খাল ও জলাধার গুলো স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে হবে। ফলে এই ব্রীজ গুলো নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ২০২১ সালের জুনের মধ্যে এসব ব্রীজের নির্মান কাজ শেষ করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করার হচ্ছে বলেও জানান তিনি।