মাস্ক ব্যবহার নিয়ে নতুন আশার বাণী শোনালেন বিজ্ঞানীরা

প্রকাশিত: ৪:০৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২, ২০২০
0Shares

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে থমকে পড়েছে পুরো বিশ্ব। এই মহামারি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে নিজেকে দূরে রাখার অন্যতম উপায় হচ্ছে মাস্ক ব্যবহার করা। নিয়মিত মাস্ক ব্যবহার নিয়ে নতুন আশার বাণী শোনালেন জার্মান বিজ্ঞানীরা।
সম্প্রতি মহামারি করোনা সংক্রমণ রোধে মাস্ক নিয়ে নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। মাস্ক নিয়ে নতুন এই নির্দেশিকায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, যেহেতু নিয়ম মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব নয়, সেহেতু সাধারণ কাপড়ের মাস্কে করোনার সংক্রমণ রোখা যাবে না। তাই একমাত্র ত্রিস্তর বিশিষ্ট মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়েছে।

 

জার্মানির একদল বিজ্ঞানীরাও দাবি করলেন, নিয়মিত মাস্কের ব্যবহারে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে আনা যেতে পারে করোনা সংক্রমণের হার! মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করার পর অবিশ্বাস্য সাফল্য মিলেছে বলে দাবি করেছেন তারা।

জার্মানির  ‘আইজেডএ ইনস্টিটিউট অব লেবার ইন বন’-এর গবেষকরা জানান, মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করার ১০ দিনের মধ্যেই জার্মানির শহর জেনায় করোনা আক্রান্তের হার ২.৩ শতাংশ থেকে ১৩ শতাংশ পর্যন্ত কমে গিয়েছে। এইভাবে জার্মানির শহরে সমীক্ষা চালিয়ে ‘আইজেডএ ইনস্টিটিউট অব লেবার ইন বন’-এর গবেষকরা দাবি করেন, এইভাবে সর্বত্র মাস্কের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা গেলে দৈনন্দিন করোনা সংক্রমণের হার প্রায় ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে আনা যেতে পারে।

 

এছাড়াও গত শুক্রবার ‘নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিন’ ‘আইজেডএ ইনস্টিটিউট অব লেবার ইন বন’-এর একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে।   যাতে ফেব্রুয়ারি মাসে ডায়মন্ড প্রিন্সেস ক্রুজের উপসর্গহীন এবং উপসর্গযুক্ত করোনা আক্রান্তদের মাস্ক পরার প্রভাবের উপর সমীক্ষা করা হয়েছিল। এই সমীক্ষাতেও মাস্কের ব্যবহারের ফলে দৈনন্দিন করোনা সংক্রমণের হার কমার প্রমাণ মিলেছে।

আরিফুল ইসলাম (বার্তা সম্পাদক)
        “দ্যা নিউ স্টার”