করোনায় যাদের হারাল বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ৬:৪৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০
0Shares

করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত বিশ্ব। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। ইতিমধ্যে বিশ্বব্যাপী আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ছাড়িয়েছে। মারা গেছেন ৫ লাখেরও বেশি মানুষ।

করোনাভাইরাস বিশ্বের প্রায় সব দেশেই কম-বেশি ছোবল হেনেছে। করোনা যেসব দেশে তার ভয়াল তাণ্ডবলীলা চালিয়ে উপর্যুপরি সংক্রমণ ও মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘায়িত করছে, সেসব দেশের তালিকায় শীর্ষ বিশের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ। এমনকি ব্রিটেনের প্রভাবশালী অনলাইন গার্ডিয়ানে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দ্বিতীয় দফা সংক্রমণ ঝুঁকির মধ্যে যে ১০টি দেশ রয়েছে, তার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। প্রতিদিনই বাংলাদেশে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে সর্বোচ্চ ৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ৩০ জুন মঙ্গলবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে এ তথ্য জানিয়েছেন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। এর আগে এক দিনে সর্বোচ্চ ৫৩ জনের মৃত্যুর রেকর্ড ছিল। এ পর্যন্ত দেশে মোট ১ হাজার ৮৪৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। মোট রোগী শনাক্ত হয়েছে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৪৮৩ জন এবং মোট সুস্থ হয়েছেন ৫৯ হাজার ৬২৪ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই প্রাণ হারাচ্ছেন দেশের সকল শ্রেণি-পেশার অসংখ্য মানুষ। কুঁড়েঘর থেকে বিশাল অট্টালিকার বাসিন্দা-কাউকেই ছাড়ছে না করোনা। মৃত্যুর তালিকায় যেমন কৃষক, শ্রমিক, জেলে, দিনমজুরের নাম রয়েছে, তেমনি রয়েছে মন্ত্রী, এমপি, রাজনীতিবিদ, ডাক্তার, পুলিশ, সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীর নামও। নাম না-জানা অনেক মানুষ যেমন প্রাণ হারাচ্ছেন, তেমনি অনেক খ্যাতিমান ব্যক্তিত্বকেও আমরা হারাচ্ছি। গত সপ্তাহেও এমন অনেক নামকরা বিখ্যাত মানুষকে করোনা তার শিকারে পরিণত করেছে, যাদের মৃত্যু সমাজ ও দেশের জন্য সত্যিই অপূরণীয় ক্ষতি।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীর স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ বানু : কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ বানু মারা গেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। ২৯ জুন (সোমবার) সকাল পৌনে ৮টার দিকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। লায়লা আরজুমান্দ বানু দুই মেয়ে, এক ছেলে রেখে গেছেন। মন্ত্রীর ছেলে এ টি এম মাজহারুল হক তুষার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৩ জুন মন্ত্রী ও মন্ত্রীর স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ বানু সিএমএইচে ভর্তি হন। মোজাম্মেল সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে গেলেও লায়লা আরজুমান্দ বানুর অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে সিএমএইচে রাখা হয়। অবশেষে তিনি করোনার কাছে হেরে না ফেরার দেশে চলে গেলেন।
সাবেক এমপি শাহজাহান তালুকদার : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, বগুড়া জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শাহজাহান তালুকদার। ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৮ জুন (রোববার) সকাল ১০টার দিকে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।

‘গেদুচাচা’ খ্যাত সাংবাদিক খোন্দকার মোজাম্মেল হক : ‘গেদুচাচা’ খ্যাত কলামিস্ট, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সিনিয়র সদস্য সাংবাদিক খোন্দকার মোজাম্মেল হক ২৯ জুন (সোমবার) বিকাল ৪টার দিকে রাজধানীর এএমজেড হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছেন। পরিবারের বরাত দিয়ে তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী। বেশ কয়েক দিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন ফেনীর এই কৃতী সাংবাদিক। এরই মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। গত ২৭ জুন তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও রোববার অবনতি হয়। তার জন্য প্লাজমার খোঁজ চলছিল বলে জানিয়েছিলেন সাংবাদিক নেতা শাবান মাহমুদ। কৃতী এই সাংবাদিকের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহসীন চৌধুরী : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী মারা গেছেন। এর আগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। সোমবার (২৯ জুন) সকাল সাড়ে ৯টায় সেখানেই তার মৃত্যু হয়। জনপ্রশাসন সচিব শেখ ইউসুফ হারুন বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, প্রবীণ আইনজীবী ও ফেনী জেলা আ’লীগ সভাপতি আক্রামুজ্জামান : মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রবীণ আইনজীবী আক্রামুজ্জামান (৭৫) করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ২৮ জুন (রোববার) ভোরে ইন্তেকাল করেছেন। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে, ১ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন, সহকর্মী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। গত ১৫ জুন থেকে জ্বর-কাশিসহ অসুস্থতা বোধ করলে বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি। পরে ১৯ জুন শুক্রবার শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিনি আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর আগে ফেনীতে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় নেগেটিভ এলেও এখানে তার করোনা পজিটিভ আসে। গত দুই দিন শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে তাকে ভেন্টিলেটর সাপোর্ট দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা আল্লাহ মালিক কাজেমী : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিবর্তন ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা (চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট অ্যাডভাইজর) ও সাবেক ডেপুটি গভর্নর আল্লাহ মালিক কাজেমী মারা গেছেন। ২৬ জুন (শুক্রবার) রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম। সিরাজুল ইসলাম বলেন, আল্লাহ মালিক কাজেমী কয়েক দিন আগে অসুস্থতা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে পরীক্ষা করে তার কোভিড-১৯ পজিটিভ আসে।

সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার ভাই আনোয়ার হোসেন : ঢাকার সাবেক মেয়র ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার ছোট ভাই আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। ২৬ জুন (শুক্রবার) বিকেল সাড়ে ৫টায় তেজগাঁও ইমপালস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান। গত বছরের ৪ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা।

সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের ভাই ফয়জুর রহমান : প্রয়াত অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের ছোট ভোই মো. ফয়জুর রহমান (ফাখর) আর নেই। ২৮ জুন (রোববার) রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন তিনি। ফয়জুর রহমান জীবদ্দশায় পূবালী ব্যাংকের পরিচালক, ন্যাশনাল টি কোম্পানির পরিচালকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। তিনি দুই ছেলে, দুই মেয়ে এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তাকে বনানী গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সেলিম : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন বেসরকারি খাতের মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের উদ্যোক্তা পরিচালক ও ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সেলিম। শুক্রবার (২৬ জুন) ঢাকার আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান বলে নিশ্চিত করেন ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি বলেন, মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে ও এক মেয়ে, নাতি-নাতনিসহ বহু আত্মীয় ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

আইনজীবী আবু বকর সিদ্দিক : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আইনজীবী আবু বকর সিদ্দিক (৬৭)। তিনি সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সদস্য ও ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক কার্যনিবাহী কমিটির সদস্য ছিলেন। মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. উজ্জ্বল মিয়া। ২৮ জুন (রোববার) বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন।

ডা. সৈয়দ তমিজুল আহসান রতন : রতন’স ডেন্টালের চিফ কনসালট্যান্ট ডা. সৈয়দ তমিজুল আহসান রতন করোনাভাইরাস উপসর্গে মারা গেছেন। সোমবার (২৯ জুন) ভোররাতে রাজধানীর জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালের আইসিইউতে তিনি মারা যান। ডা. রতনের ঘনিষ্ঠ ডেন্টিস্ট ও কলামিস্ট ডা. সায়ান্থ সাখাওয়াৎ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, গত ২৭ জুন শনিবার গভীর রাতে করোনা উপসর্গ নিয়ে ডা. রতন হাসপাতালে ভর্তি হন। অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। তবে রিপোর্ট আসার আগেই তিনি মারা যান।

এ পর্যন্ত করোনায় মারা যাওয়া বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ : সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, জাতীয় অধ্যাপক ও দেশবরেণ্য বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ, প্রখ্যাত সাংবাদিক কামাল লোহানী, সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর কম্পিউটার উইংয়ের পরিচালক (যুগ্ম সচিব) জাফর আহম্মদ খান, আইনজীবী শেখ নাসির উদ্দিন আহমেদ, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডের (ইউসিবি) পরিচালক ও ইউসিবির রিস্ক ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সাবেক পরিচালক প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. একেএম মুজিবুর রহমান, বিআরবি হাসপাতালের আইসিইউ বিশেষজ্ঞ ও বিভাগীয় প্রধান এবং অ্যানেস্থেসিওলজির সাবেক সহযোগী অধ্যাপক ডা. সাজ্জাদ হোসাইন, ঢাকা কাস্টমস হাউসের রপ্তানি পরীক্ষা ইউনিটে কর্মরত রাজস্ব কর্মকর্তা (সুপারিন্টেনডেন্ট) খোরশেদ আলম, মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের পরিচালক মো. ফখরুল কবির, শিল্পপতি আজমত মঈন, চিকিৎসক মইনউদ্দিন, চিকিৎসক ডা. এহসানুল কবির চৌধুরী, রাজস্ব কর্মকর্তা জসীম উদ্দিন মজুমদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক শাকিল উদ্দিন আহমেদ, শান্ত-মারিয়াম ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা ইমামুল কবীর শান্ত, ঢাকার সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুর, তথ্য কমিশনের সাবেক অতিরিক্ত সচিব কৃষিবিদ তৌফিকুল আলম, রূপালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের পরিকল্পনা ও গবেষণা বিভাগের উপ-মহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) সহিদুল ইসলাম খান, ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক নাজমুল করিম চৌধুরী, সাংবাদিক হুমায়ুন কবির খোকন, সাংবাদিক মাহমুদুল হাকিম অপু, সাংবাদিক মিজানুর রহমান খান প্রমুখ।

আরিফুল ইসলাম (বার্তা সম্পাদক)
          “দ্যা নিউ স্টার”