ইসলামের দৃষ্টিতে দেনমোহর, স্ত্রীর হক আদায় করা জরুরি

প্রকাশিত: ৬:০১ অপরাহ্ণ, জুলাই ৯, ২০২০
0Shares

 ইসলামী বিধান অনুযায়ী স্ত্রীর দেনমোহর আদায় করা জরুরি। দেনমোহরের মূল উদ্দেশ্য হল নারীকে সম্মান ও মর্যাদা দেওয়া। এটা শুধু সামাজিক রেওয়াজ নয়, যা পরিশোধ করার বাধ্যবাধকতা থাকে না; বরং শরীয়তের উদ্দেশ্য হল, যখন স্বামী-স্ত্রীকে ঘরে তুলবে তখন তাকে অবশ্যই মর্যাদা ও সম্মান সহকারে আনবে এবং এজন্য এমন কিছু উপহার দিবে, যা তাকে সম্মানিত করে।

শরীয়তের দৃষ্টিতে এটা এতটাই অপরিহার্য। মোহর ছাড়া বিয়ে হয় না। আকদের সময় উল্লেখ না করলেও কিংবা না দেওয়ার শর্ত করলেও মোহর বাতিল হয় না। কোরআনে আল্লাহ তায়ালা স্ত্রীদের মোহরানা দেওয়ার আদেশ করেছেন।

মোহর পরিশোধ না করার নিয়তে যে স্বামী অধিক পরিমাণ মোহর নির্ধারণপূর্বক স্ত্রীকে বিয়ে করে তার সঙ্গে দাম্পত্য জীবন শুরু করে, সেটা আসলে প্রতারণার মাধ্যমে দাম্পত্য জীবন শুরুর শামিল। কেননা, দেনমোহরের কারণেই স্ত্রী তার স্বামীর জন্য হালাল হয়েছিল। অতএব দেনমোহরই যেখানে পরিশোধ করা হলো না, সেখানে স্ত্রীর সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক হালাল হবে না।

[আজকাল অনেক স্বামী আবার মনে করেন, স্ত্রীর ভরণ-পোষণসহ যাবতীয় ব্যয়ভার তো তিনিই বহন করছেন। অতএব এর মধ্যে আবার আলাদা করে তাকে মোহর পরিশোধ করতে হবে কেন? না, মোহরের সঙ্গে ভরণপোষণের কোনো সম্পর্ক নেই। দু’টি সম্পূর্ণ আলাদা অধিকার, দু’টোই স্বামীকে বহন করতে হবে।

দেনমোহর বিয়ের আকদের পর প্রদান করাতে কোন সমস্যা নেই। তবে সহবাসের পূর্বে প্রদান করাই উত্তম। তবে যদি স্ত্রী দেনমোহর প্রদান করা ছাড়াই সহবাসের অনুমতি প্রদান করে তাহলে কোন সমস্যা নেই। বাকি স্ত্রী দেনমোহর প্রদান করা ছাড়া প্রথম সহবাসের পূর্বে বাঁধা প্রদান করতে পারবে। কিন্তু একবার সহবাস হয়ে গেলে আর বাঁধা দিতে পারবে না। কিন্তু স্বামীর জিম্মায় দেনমোহর আদায় না করলে তা ঋণ হিসেবে বাকি থেকে যাবে।

স্ত্রী যদি দেনমোহর মাফ না করে, আর স্বামীও তা পরিশোধ না করে, তাহলে কিয়ামতের ময়দানে স্বামীর অপরাধী সাব্যস্ত হবে। তাই দেনমোহরের টাকা পরিশোধ করে দেয়া জরুরি। কোরআনে এরশাদ হচ্ছে- ‘‘আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের মোহর দিয়ে দাও খুশীমনে। তারা যদি খুশী হয়ে তা থেকে অংশ ছেড়ে দেয়, তবে তা তোমরা স্বাচ্ছন্দ্যে ভোগ কর। ’’ সূরা নিসা-৪

সূরা মায়িদায় বর্ণিত হয়েছে ‘‘তোমাদের জন্যে হালাল সতী-সাধ্বী মুসলমান নারী এবং তাদের সতী-সাধ্বী নারী, যাদেরকে কিতাব দেয়া হয়েছে তোমাদের পূর্বে, যখন তোমরা তাদেরকে মোহরানা প্রদান কর।’’

আরেক সূরায় বলা হচ্ছে, তোমরা এই নারীদেরকে প্রাপ্য মোহরানা দিয়ে বিবাহ করলে তোমাদের অপরাধ হবে না। সূরা মুমতাহিনা-১০

বিয়ে বিচ্ছেদ হলে বা স্বামীর মৃত্যু হলে স্ত্রী তার দেনমোহর আদায়ের জন্য জোর করতে পারেন। স্বামীর মৃত্যু হলেও বকেয়া দেনমোহর একটি ঋণের মতো। এটি শোধ করতেই হয়। স্বামীর উত্তরাধিকারীরা এটি প্রদানে বাধ্য। অন্যথায় মৃত স্বামীর উত্তরাধিকারীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরও করতে পারবে। এমনকি স্ত্রী আগে মারা গেলেও দেনমোহর মাফ হয় না। স্ত্রীর উত্তরাধিকারীরা এই দেনমোহরের হকদার। তারাও মামলা করার অধিকার রাখেন।

মোঃ নুরুল ইসলাম(ডেস্ক এক্সিকিউটিভ)
               “দ্যা নিউ স্টার”