ছাত্রদল থেকে ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি খলিল প্রধানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

প্রকাশিত: ৪:২৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১০, ২০২০
0Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক: আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের চিত্রশাইল এলাকার ছাত্রদল নেতা থেকে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি বনে যাওয়া খলিল প্রধানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উঠেছে। এলাকায় ডিস লাইন ও অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদানসহ সরকারী রাস্তা এবং ড্রেনের ইট বিক্রীরও অভিযোগ তার বিরুদ্ধে।

খোজ নিয়ে জানা যায়, আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের চিত্রশাইল (৬নং ওয়ার্ড) এলাকার মতিন প্রধানের ছেলে খলিল প্রধান এলাকায় ছাত্রদলের নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করে বিভিন্ন ধরনের অবৈধ কাজের সাথে জড়িয়ে পড়ে। খলিল প্রধানের বাবা মতিন প্রধান ও বড় ভাই মোশারফ প্রধানও বিএনপির রাজনীতি করে এবং মোশারফ প্রধানের নামে একাধিক নাশকতার মামলা রয়েছে আশুলিয়া থানায়। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরও খলিল প্রধান ও তার ভাই মেশারফ প্রধান আশুলিয়া থানা ছাত্রদলের সভাপতি বিকাশের সাথে বিএনপি’র বিভিন্ন নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনায় সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়। কিন্তু দীর্ঘদিন বিএনপি ক্ষমতার বাহিরে থাকায় খলিল প্রধানের অবৈধ কার্যক্রমে ভাটা পড়তে থাকে। পাশাপাশি এলাকায় আধিপত্ত্য বিস্তারের জন্য গেলো পাঁচ বছর আগে কৌশলে টাকার বিনিময়ে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি পদ ভাগিয়ে নেয়।

এলাকাবাসীরা অভিযোগ করেন, ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যোগদান করে নতুন করে মাথাচারা দিয়ে উঠেছে খলিল প্রধান। এলাকায় ডিস লাইন ও অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদানসহ সরকারী রাস্তা এবং ড্রেনের ইট বিক্রীরও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ইয়ারপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি খলিল প্রধান বলেন, আমি বন্ধুদের সাথে এলাকায় ডিস লাইনের ব্যবসা করি কিন্তু অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদানের সাথে আমার কোন সম্পৃক্ততা নাই। এছাড়া সরকারী কোন রাস্তার ইটও আমি বিক্রী করিনাই, বরং আমরা

এলাকাবাসীরাই নিজস্ব অর্থায়নে ড্রেন নির্মান করছি। আশুলিয়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ শামিউল ইসলাম শামীম বলেন, খলিল প্রধান ২০১৬ সালে আমরা সভাপতি হওয়ার পর ছাত্রলীগের কমিটিতে যোগদান করেন। এর আগে সে ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলো কিনা তা আমার জানা নাই। আপনাদের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারলাম এবং তদন্ত করে অভিযোগ প্রমানিত হলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।