নান্দাইলে এক দরিদ্র পরিবারের ৫ প্রতিবন্ধীর মধ্যে ৪ জনই ভাতা বঞ্চিত!

প্রকাশিত: ৯:৫৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৮, ২০২০
0Shares
 মোহাম্মদ আমিনুল হক বুুলবুল নান্দাইল ( ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি:
ময়মনসিংহের নান্দাইলে এক দরিদ্র পরিবারের ৫ সদস্য বাক প্রতিবন্ধী। এর মধ্যে মা জরিনা খাতুন (৪৮) প্রতিবন্ধী ভাতা পেলেও তার বাক প্রতিবন্ধী এক মাত্র ছেলে ও তিন মেয়ে সরকারী ভাতা সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছে।
উপজেলার বীর বেতাগৈর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের চৈতনখালী গ্রামের এই পরিবারটি দারিদ্র্যতার মধ্যে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। পরিবারটির কর্তা উপার্জনক্ষম সাইদুল ইসলাম মারা গেছেন কয়েক বছর আগে।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এক চিলতে বসত ভিটায় ওই পরিবারটির ভাঙাচোরা একটি টিনের ঘরে বসবাস করছে। মৃত সাইদুল ইসলামের স্ত্রী জরিনা খাতুনসহ তাদের তিন মেয়ে সালমা আক্তার (২০),খাদিজা আক্তার(১৮), সাথী আক্তার (১৫) ও এক মাত্র ছেলে আব্দুল্লাহ (১৭) বাক প্রতিবন্ধী। পরিবারটির ৬ সদস্যের মধ্যে বড় মেয়ে নূরজাহান স্বাভাবিক। তার বিয়ে হয়েছে।
 কথা বলতে না পারা এবং কানে না শুনতে পারলেও অদম্য ইচ্ছা শক্তিতে ছোট মেয়ে সাথী আক্তার স্থানীয় জহুরা খাতুন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে লেখাপড়া করছে। লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহ থাকায় ইশারা ইঙ্গিতের মাধ্যমে সালমা, খাদিজা ও আব্দুল্লাহ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছে। উপযুক্ত শিক্ষার পরিবেশ ও আর্থিক টানাপোড়নের কারণে তাদের আর লেখাপড়া করা হয়নি।
২০১৭ সালে পরিবারটির উপার্জনক্ষম কর্তা সাইদুল ইসলামের মৃত্যুর পর পরিবারে অভাব চরমে পৌঁছে। দুই মেয়ে সালমা ও খাদিজা ঢাকায় গিয়ে বাসাবাড়িতে ঝিয়ের কাজ শুরু করে। স্থানীয় সাংবাদিক প্রভাষক মোহাম্মদ আমিনুল হক উপজেলা সমাজ সেবা অফিসে যোগাযোগ করে বাক প্রতিবন্ধী জরিনা খাতুনকে প্রতিবন্ধী ভাতার ব্যবস্থা করে দেন। কিন্তু এই মায়ের প্রতিবন্ধী ৪ সন্তান সরকারী ভাতা সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছে।
এ ব্যাপারে স্থানীয়রা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। তারা এই দরিদ্র পরিবারটির জন্য সরকারীভাবে একটি ঘর নির্মাণ করে দেওয়ারও দাবি জানান।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে নান্দাইল উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ ইনসান আলী  বলেন, খুবই মানবিক ঘটনা এটি। একই পরিবারের পাঁচ প্রতিবন্ধী থাকার বিষয়টি আমার জানা ছিল না। তিনি জানান, স্কুল পড়ুয়া সাথী আক্তারকে অনার্স পর্যন্ত লেখাপড়ার জন্য সরকারী শিক্ষাবৃত্তির ব্যবস্থা করে দেওয়া সম্ভব। পরিবারটির বাক প্রতিবন্ধী অন্য সদস্যদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভাতা পাওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে। তাদেরকে অফিসে যোগাযোগ করতে তিনি পরামর্শ দেন।
নান্দাইল উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মো. এরশাদ উদ্দিন বলেন, বাক প্রতিবন্ধী পরিবারটির সদস্যদের জন্য ভাতার ব্যবস্থা করা হবে। সেই সাথে খাস জায়গা পেলে তাদের জন্য সরকারী অর্থায়নে একটি ঘর করে দেওয়ার পরিকল্পনা আছে।