নান্দাইলে আউশ ধানের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাঁসি

প্রকাশিত: ৩:৪২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০
0Shares
মোহাম্মদ আমিনুল হক বুুলবুল ,নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের নান্দাইলে আউশ ধানের চনমনে গন্ধে মাতোয়ারা কৃষক। মাঠে মাঠে সোনালী পাকা আউশ ধানের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে ফুটেছে হাঁসির ঝিলিক। শুরু হয়েছে ধান কাটা।  ঘাম ঝরানো স্বপ্নের ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত কৃষক। বাড়ীর উঠানে  কৃষাণীর ব্যস্ততা।  প্রতিটি ক্ষেতে যেন ফুটে উঠেছে সোনালী রঙ। সোনালী রঙে রাঙ্গিয়ে তুলেছে মাঠের পর মাঠ। গত বছরের তুলনায় চলতি আউশ মৌসুমে ফলন ভাল ও দাম বেশী হওয়ায় কৃষকের মুখে ফুটেছে  মিষ্টি হাঁসির ঝিলিক।
 নান্দাইল উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, একটি পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়নে এ বছর আউশের  লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ হাজার ৩ শত ৭৫ হেক্টর জমি। অর্জিত হয়েছে ২ হাজার ২ শত ৯০ হেক্টর জমি। মোট উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৬ শত ২২ মেট্রিক টন। হেক্টর প্রতি উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা উফসী ২.৮০ মেট্রিকটন। অনুকুল আবহাওয়া, কৃষকদের প্রশিক্ষণ ও মাঠ পর্যায়ে তদারকির কারণে চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অধিক ধান উৎপাদন হবে বলে আশা কৃষি বিভাগের।
তসরা গ্রামের কৃষক কাজল,পালাহারের আমিনুল, আতকাপাড়ার আঃ রাশিদ,এমরান, সাভারের নারায়ণ গূপ্ত,হরিপদ,বাঁশহাটির শাহ আলম,হেলাল উদ্দিন ও বিয়ারা গ্রামের কৃষক রফিকুল ইসলাম জানান, বিগত কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর আউশ ধানের ফলন ভালো হয়েছে। তাছাড়া বাজারে ধানের দামও বেশী। ভালো ফলন পেয়ে আমরা খুব খুশী।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো: রেজাউল করিম জানান, এ বছর ব্রি ধান ৪৮,৮২ ও ২৮ জাতের ধান আবাদ করা হয়েছে। কৃষকের সংখ্যা প্রায় ১১ হাজার।
তাছাড়া উপজেলায় আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে ধান,গম ও পাট বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্পের আওতায় মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়নের সাদুল্লানগর ও গাংগাইল ইউনিয়নের অরণ্যপাশায়
৪ একর করে ২ টি প্রদর্শনী প্লট রয়েছে। যারা বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও কৃষক পর্যায়ে বিপণন করবেন।
নান্দাইল উপজেলা কৃষি অফিসার,  কৃষিবিদ মোঃ হারুন-অর-রশিদ বলেন, বিগত কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর আউশের বাম্পার ফলন হয়েছে। কারণ আউশে সেচ, সার ও শ্রম কম খরচ হয়। বাজারে ধানের দাম ভাল। এভাবে ধানের দাম থাকলে নান্দাইলের কৃষকগণ অনেক লাভবান হবেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: এরশাদ উদ্দিন বলেন, বর্তমান সরকার কৃষিবান্ধব সরকার।  কৃষকদেরকে বিনামূল্য বীজ ও সার প্রণোদনা দেওয়ায় এ বছর আউশের বাম্পার ফলন হয়েছে।