পটুয়াখালীতে সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ঘটনায় থানায় জিডি, প্রতিবাদের ঝড়, ভাঙ্গা হলো টাউনহলের সামনের স্টল

প্রকাশিত: ৭:৫৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০
0Shares

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:
পটুয়াখালীর ঐতিহ্যবাহি টাউনহলের বারান্দায় স্টল নির্মানের ভিডিও ধারন করতে গিয়ে যুবদল নেতা কর্তৃক দুই সাংবাদিক লাঞ্ছিত হবার ঘটনায় সদর থানায় সাধারণ ডায়রি করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে এক জরুরী সভার সিদ্বান্ত অনুযায়ী মাছরাঙ্গা টিভির প্রতিনিধি চিনময় কর্মকার বাদী হয়ে সুবিধাভোগি ব্যবসায়ী ও যুবদলের সহসভাপতি আকরাম শিকদার ও ব্যবসায়ী লিকন গাজীসহ অজ্ঞাত নাম আরো ৬/৭ জনের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়রিটি করেন। এর আগে ওই জরুরী সভায় এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনের কাছে দাবী জানান হয়। এদিকে শনিবার বেলা ১১টার দিকে জেলার ইতিহাস ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি রক্ষায় স্থানীয় শহীদ স্মৃতি পাঠাগারে শহরের সকল সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার প্রতিনিধিরা মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। সেখানে সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে টাউনহল রক্ষায় দূর্বার আন্দোলনে নামার অঙ্গিকার করা হয়। অপরদিকে শুক্রবার রাত থেকে বিভিন্ন মিডিয়ায় সাংবাদিক লাঞ্ছিতের সংবাদ প্রকাশ পেলে এবং তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে বিষয়টি বিচার বিভাগসহ সকল প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হয়। যার প্রেক্ষিতে শনিবার বেলা ১২টার দিকে বিচার বিভাগ ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতিনিধিরা ঘটনাস্থলে এসে টাউনহলের বারান্দার নবনির্মিত দেয়াল ভাঙ্গার নির্দেশ দেন। পরে স্টলের জন্য তৈরিকৃত দেয়ালগুলো ভাঙ্গা হয়। উল্লেখ্য, টাউনহলের জায়গা দখল করে অবৈধভাবে স্টল নির্মানের প্রতিবাদে শুক্রবার সকালে স্থানীয় ধ্রæবতারা ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন নামের একটি সংগঠন মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেন। ওই কর্মসূচী শেষে মাছরাঙ্গা টিভির প্রতিনিধি চিনময় কর্মকার ও বাংলাভিশনের প্রতিনিধি কেএম শাহাদৎ হোসেন টাউনহলের ভিডিও ধারণ করতে যায়। সেখানে সুবিধাভোগি ব্যবসায়ী ও যুবদলের সহসভাপতি আকরাম শিকদার ও ব্যবসায়ী লিকন গাজী ওই দুই সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করে। তাদের ভিডিও ধারণ করতে বাধা দেয় এবং উল্টো স্থানীয় অন্য ব্যবসায়ীদের দিয়ে ওই দুই সাংবাদিকের ভিডিও ধারণ করে রাখে। এসময় তারা সাংবাদিকদের সম্পর্কে নানা কটুক্তি করে।