সম্পত্তিসহ প্রাণ বাচাঁতে ঘুরছেন আইনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে মসজিদের মুয়াজ্জিন !

প্রকাশিত: ৯:২৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০২০
0Shares

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:
ত্রিশ বছরের ভোগদখলীয় জমি দখল হয়ে যাওয়ার শংঙ্কায় ভুগছেন পটুয়াখালীর কলাপাড়ার পৌর শহরের বড় সিকদার বাড়ি মসজিদের মুয়াজ্জিন সাইফুদ্দিন সিকদার। স্থানীয় চিহ্নিত ভ‚মিদস্যুদের অব্যাহত হুমকি-হামলার প্রানলাশের শংঙ্কায় পরিবার নিয়ে আইনের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছে তিনি। কলাপাড়ার চাঞ্চল্যকর ছাত্রলীগ কর্মী অভি হত্যা মামলার এজাহারভূক্ত আসামী নজরুল ইসলাম জামিনে এসে বিএনপি কর্মী জসিম উদ্দিন (কালা জসিম), কৃষকলীগ নেতা সৌরভ শিকদারসহ কতিপর বহিরাগতের সহায়তা নিয়ে এমন ন্যাক্কারজনক কর্মকান্ড চালাচ্ছে। এমন দাবী করে শুক্রবার বেলা এগারোটায় কলাপাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সাইফুদ্দিন সিকদার। এসময় তার পরিবারের সকল সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন, ৩০ বছর পূর্বে তিনটি দলিল মূলে কলাপাড়া পৌর এলাকার ৯ নং ওয়ার্ডের এসএ ২০ ও ২১ নং খতিয়ানে ৬২১ ও ৬২২ নং দাগে প্রকৃত মালিক আলতাফ হোসেন গংদের নিকট থেকে ০.৩৩ শতাংশ জমি ক্রয় করে বসতভিটা নির্মান করে, পুকুর খনন করে, বাগান তৈরি করে বসবাস করছে। কিন্তু ২০১৬ সালে নজরুল ইসলাম হাওলাদার গং হঠাৎ করেই আমার বসতবাড়ির একটি অংশ দখল করার পায়তারায় লিপ্ত হয়ে হুমকি ধামকি দিতে থাকে। এ ব্যাপারে ১১/১২/২০১৬ তারিক স্মারক নং ৮৭ কলাপাড়া পৌরসভায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি। পৌর মেয়র বিষয়টি স্থানীয় কাউন্সিলর আল-আমিন সিরদারের উপার দ্বায়িত্ব অর্পন করলে ২৪/১২/২০১৬ তারিখ স্থানীয় সালিশ উভয়পক্ষের দলিলপত্রদী পর্যলোচনা করে। আমার দলিল, দখল আইনগত ও ন্যায়সংগত হওয়ায় নজরুল হাওলাদার গংকে ভবিষ্যতে কোন দাবী না করাসহ শান্তিপূর্ন ভোগ দখল বহায় থাকে এ মর্মে রোয়েদারপত্র সম্পন্ন করে উভয়পক্ষের সম্মলিতে ¯^াক্ষর রাখা হয়।
তিনি বলেন, কিন্তু ভ‚মিদস্যু ও জবর দখলকারী নজরুল ইসলাম ও তার দোষরা স্থানীয় সালিশ ব্যবস্থা না মেনে ০৯/০৯/ ২০২০ তারিখ হঠাৎ করে রাতের আধারে দলবদ্ধভাবে দেশীয় অ¯্রে সজ্জিত হয়ে আমার বাড়িতে প্রবেশ করে একাধিক মেহগনি গাছ কেটে নিয়ে যায়। এসময় আমার পুত্র ঘর থেকে বের হলে তাকে বেধরক মারধর করে গুরুতর আহত করে। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেশিয় অ¯্রসহ হাতেনাতে পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় একটি মামলা করেছি। যার নং ২৭৫/২০২০। এছাড়া কলাপাড়া বিজ্ঞ সিনিয়র জজ আদালতে আরো একটি মামলা করেছি। যার নং ৩২২/২০২০।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম সকল আভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট ও সাজানো নাটক উল্লেখ করে বলেন, প্রকৃতপক্ষে জমির মালিক আলতাফ হোসেন। অলতাফ হোসেনের ২৮/১১/২০১২ তারিখের ৬১৯৫/২০১২ নম্বর পাওয়ার অব এ্যার্টনি রেস্ট্রিকৃত দলিলমূলে এই সম্পতির প্রকৃত মালিক এখনও আমি।