তাড়াশে শান্তি কমিটির চেয়ারম্যানের পুত্রকে ইউনিয়ন আ’লীগের নেতৃত্বে না দিতে মুক্তিযোদ্ধাদের লিখিত অভিযোগ

প্রকাশিত: ৪:২৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০২০
20 Views

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি:
সিরাজগঞ্জের তাড়াশে রাজাকার ও শান্তি কমিটির ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এর পুত্র কে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে আর দেখতে চান না ত্যাগী আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মী ও মুক্তিযোদ্ধাগণ। এ ব্যাপারে ওই ইউনিয়নের বসবাসরত ও ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী আব্দুল হাকিম সহ ৩ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি / সম্পাদক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি সাইফুজ্জামান আলম এর পিতা মৃত আজিজুর রহমান শান্তি কমিটির ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ছিলেন। তার পুত্র সাইফুজ্জামান আলমকে আওয়ামীলীগের একটি বড় ও দায়িত্বশীল সংগঠনের ইউনিয়ন সভাপতি করায় আওয়ামীলীগের সম্মান ক্ষুন্ন করা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের দলের নেতৃত্বে শান্তি কমিটির ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এর পুত্র সাইফুজ্জামান আলম কে না বসাতে উপজেলা আওয়ামীলীগ কে অনুরোধ করেছেন তারা।
লিখিত অভিযোগকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী আব্দুল হাকিম দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আজ আমরা নিজেরাই লজ্জিত যে যারা এ দেশ স্বাধীন করতে বিরোধিতা করেছিল সেই রাজাকার ও শান্তি কমিটির ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এর পুত্র কিভাবে আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ন পদে আসল এটা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ইউনিয়ন বাসী। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির পদ দিয়েছিল কারা সন্দেহ। জননেত্রী শেখ হাসিনা উদ্দ্যোগ নিয়েছে রাজাকার ও দূর্নীতিবাজ লোকদের আওয়ামীলীগে কোন ¯’ান দেওয়া হবে না। আমরা সে উদ্দ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি যেন সাইফুজ্জামান আলম কে আর আওয়ামীলীগের কোন পদে না রাখে।
আওয়ামী লীগে ‘অনুপ্রবেশের’ বিষয়টি এখন দেশময় আলোচিত-সমালোচিত ঘটনা। ঠিক সে সময়ই মুক্তিযোদ্ধারা উপজেলা আওয়ামীগের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে অনুপ্রবেশকারী রাজাকার ও শান্তি কমিটির ছেলে সাইফুজ্জামন আলমের বিরুদ্ধে।
নওগাঁ ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী নজরুল ইসলাম বলেন, রাজাকারের ছেলে আওয়ামীলীগ করে এটা আমরা মানি না। তাই গত ১১ নভেম্বর ২০১৯ সালে ঐতিহাসিক নওগাঁ দিবস পালনে তাকে সভাপতি করতে দেওয়া হয় নাই কারন রাজাকারের ছেলে মুক্তিযোদ্ধাদের অনুষ্ঠানে সভাপতি হলে বাঙ্গালী জাতির জন্য এটা অসম্মান করা হবে তাই বাধা দেওয়া হয়েছিল। বর্তমানেও সে তার বাবার আদর্শকে বাস্তবায়ন করার জন্য বদ্ধ পরিকর।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আরশেদুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তবে ইতিপূর্বে অভিযোগ পেয়ে তালিকা করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট জমা দিয়েছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হক বলেন, অভিযোগ অনেক আগেও একবার পেয়েছিলাম। দলীয় ভাবে তাকে নমিনেশন দিতে কোন বাধা নেই।